মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯ | ৭ কার্তিক ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

First Youth News Portal in Bangladesh

add 468*60

শিরোনাম

ভিন্ন রঙে আঁকা পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস  সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের গুরুত্ব ও এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া আত্মহত্যা সমাধান নয় যেভাবে প্রাণের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে দেখতে চাই অত:পর, কোন একদিন...... দ্রুত ওজন কমানোর কিছু কৌশল জাপানের সুমিতমো বৃত্তি পেল ঢাবির ৪০ শিক্ষার্থী চীন যাচ্ছে ইনস্টিটিউট অব মেরিন টেকনোলজি (আইএমটি) বাগেরহাটের ১০ শিক্ষার্থী ইন্টারনেট ও তরুণ প্রজন্ম জাপান সরকার দিচ্ছে মেক্সট স্কলারশিপ উচ্চ মাধ্যমিকের পর ক্যারিয়ার পরিকল্পনা মাসের খরচের টাকা বাঁচিয়ে ব্যতিক্রম লাইব্রেরি চালান রাজশাহীর বদর উদ্দিন ঢাকায় প্রথম পিআর অ্যান্ড ব্র্যান্ড কমস সামিট ২৬ অক্টোবর রাজনীতি-ক্ষমতা ও তারুণ্য গণতন্ত্র, সমাজতন্ত্র ও তারুণ্য

সমাজে শান্তি প্রতিষ্ঠা ও সংঘাত দূরীকরণে গণমাধ্যমের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ

ইয়ুথ জার্নাল প্রতিবেদক

সমাজে শান্তি প্রতিষ্ঠা ও সংঘাত দূরীকরণে গণমাধ্যম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে ইতিবাচক পরিবেশ তৈরী ও সম্ভাব্য সমাধানের পথ সুগম করতে সাংবাদিকদের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ।

দক্ষিণ কোরিয়াভিত্তিক আন্তর্জাতিক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন হেভেনলি কালচার, ওয়ার্ল্ড পিস, রেস্টোরেশন অব লাইট (এইচডব্লিউপিএল)-এর বাংলাদেশ চ্যাপ্টারের মিডিয়া ফোরাম আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে বক্তারা এসব বলেন। শুক্রবার ৫ জুলাই ২০১৯, রাজধানীর পাঠশালা মিডিয়া ইনস্টিটিউটে আয়োজিত অনুষ্ঠানে মিডিয়া ফোরামের আহবায়ক খ.ম. হারুন, ফোরামের যুগ্ম-আহবায়ক বাংলাদেশ টেলিভিশনের জাহিদুল ইসলাম ও বৈশাখী টেলিভিশনের মো. সাইফুল ইসলাম, জিটিভির সিই্ও সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা বক্তব্য রাখেন। বিশ্বব্যাপী যুদ্ধ-সংঘাত, দ্বন্দ্ব ও অশান্তি দূর করে শান্তি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্য নিয়ে ২০১৩ সালে দক্ষিণ কোরিয়ার সিউলে এই স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন আত্মপ্রকাশ করে।

বর্তমানে বিশ্বের ১২৬টি দেশে ২১৬টি অফিস রয়েছে। এসব অফিস থেকে বিশ্বব্যাপী  যুদ্ধ-সংঘাত, দ্বন্দ্ব দূর করে শান্তি প্রতিষ্ঠার পক্ষে জনমত সৃষ্টিসহ বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করে থাকে। যুদ্ধ, বিগ্রহ দূর করে শান্তি প্রতিষ্ঠার অভিষ্ঠ লক্ষ্য নিয়ে এইচডব্লিউপিএল প্রণীত ১০ দফা সুপারিশ এরইমধ্যে জাতিসংঘে প্রস্তাব হিসেবে অনুমোদনের জন্য বিবেচনাধীন রয়েছে। যা ডিক্লারেশন অব পিস অ্যান্ড সিসেশন অব ওয়ার (ডিপিসিডব্লিউ) নামে পরিচিত। প্রস্তাবটি গৃহীত হলে আন্তঃরাষ্ট্রীয়, ধর্মীয়, সামাজিক ও গোষ্ঠী সংঘাত দূর করে শান্তি প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে একটি আন্তর্জাতিক আইনের ভিত্তি তৈরি হবে।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রিন্ট, ইলেকট্রনিক ও অনলাইন মিডিয়ার প্রায় ৪০ জন সাংবাদিক অংশগ্রহণ করেন।