সোমবার, ১৯ আগস্ট ২০১৯ | ৪ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

First Youth News Portal in Bangladesh

add 468*60

শিরোনাম

সমাজে শান্তি প্রতিষ্ঠায় তরুণদের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ ডেঙ্গু বিষয়ে জরুরি বার্তা: প্রয়োজন সতর্কতা দেশে এক তৃতীয়াংশ যুবক বেকার : ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য শিশুর প্রতি যৌনসহিংসতা: নজরদারি মানেই নিরাপত্তা নয় সবুজের সমারোহ বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তির যাবতীয় কার্যক্রম এখন  মোবাইল এ্যাপস "এডমিশন এসিস্ট্যান্ট" এ মানুষ স্বপ্নকে বাঁচিয়ে রাখে না, স্বপ্নই মানুষকে বাঁচিয়ে রাখে; মাশরাফি: এক উদ্দীপনার নাম সমাজে শান্তি প্রতিষ্ঠা ও সংঘাত দূরীকরণে গণমাধ্যমের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ সমাজ বিনির্মাণে সৃষ্টিশীল তারুণ্য আক্রান্ত তারুণ্য, বিপর্যস্ত তারুণ্য ৭১-এর আওয়ামী লীগের ভাবনায় তারুণ্য তারুণের ভাবনায় আওয়ামী লীগ শীর্ষক মতবিনিময় ২৯ জুন বাংলাদেশের প্রথম আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর হচ্ছে চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (চুয়েট) বিশ্ব উদ্যোক্তা সম্মেলনে বাংলাদেশের ৬ তরুণ

সমাজে শান্তি প্রতিষ্ঠা ও সংঘাত দূরীকরণে গণমাধ্যমের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ

ইয়ুথ জার্নাল প্রতিবেদক

সমাজে শান্তি প্রতিষ্ঠা ও সংঘাত দূরীকরণে গণমাধ্যম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে ইতিবাচক পরিবেশ তৈরী ও সম্ভাব্য সমাধানের পথ সুগম করতে সাংবাদিকদের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ।

দক্ষিণ কোরিয়াভিত্তিক আন্তর্জাতিক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন হেভেনলি কালচার, ওয়ার্ল্ড পিস, রেস্টোরেশন অব লাইট (এইচডব্লিউপিএল)-এর বাংলাদেশ চ্যাপ্টারের মিডিয়া ফোরাম আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে বক্তারা এসব বলেন। শুক্রবার ৫ জুলাই ২০১৯, রাজধানীর পাঠশালা মিডিয়া ইনস্টিটিউটে আয়োজিত অনুষ্ঠানে মিডিয়া ফোরামের আহবায়ক খ.ম. হারুন, ফোরামের যুগ্ম-আহবায়ক বাংলাদেশ টেলিভিশনের জাহিদুল ইসলাম ও বৈশাখী টেলিভিশনের মো. সাইফুল ইসলাম, জিটিভির সিই্ও সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা বক্তব্য রাখেন। বিশ্বব্যাপী যুদ্ধ-সংঘাত, দ্বন্দ্ব ও অশান্তি দূর করে শান্তি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্য নিয়ে ২০১৩ সালে দক্ষিণ কোরিয়ার সিউলে এই স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন আত্মপ্রকাশ করে।

বর্তমানে বিশ্বের ১২৬টি দেশে ২১৬টি অফিস রয়েছে। এসব অফিস থেকে বিশ্বব্যাপী  যুদ্ধ-সংঘাত, দ্বন্দ্ব দূর করে শান্তি প্রতিষ্ঠার পক্ষে জনমত সৃষ্টিসহ বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করে থাকে। যুদ্ধ, বিগ্রহ দূর করে শান্তি প্রতিষ্ঠার অভিষ্ঠ লক্ষ্য নিয়ে এইচডব্লিউপিএল প্রণীত ১০ দফা সুপারিশ এরইমধ্যে জাতিসংঘে প্রস্তাব হিসেবে অনুমোদনের জন্য বিবেচনাধীন রয়েছে। যা ডিক্লারেশন অব পিস অ্যান্ড সিসেশন অব ওয়ার (ডিপিসিডব্লিউ) নামে পরিচিত। প্রস্তাবটি গৃহীত হলে আন্তঃরাষ্ট্রীয়, ধর্মীয়, সামাজিক ও গোষ্ঠী সংঘাত দূর করে শান্তি প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে একটি আন্তর্জাতিক আইনের ভিত্তি তৈরি হবে।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রিন্ট, ইলেকট্রনিক ও অনলাইন মিডিয়ার প্রায় ৪০ জন সাংবাদিক অংশগ্রহণ করেন।