বুধবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৮ | ২ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

First Youth News Portal in Bangladesh

add 468*60

শিরোনাম

বিশ্ব শান্তির প্রসারে দক্ষিণ কোরিয়ার শান্তি সামিট অনুষ্ঠিত আত্মহত্যা নয়, জীবনকে উপভোগ করুন চবি ক্যাম্পাসে উজ্জ্বল রুমান কনভারশন ডিসঅর্ডার: দরকার সচেতনতা   ইউএনও’র ব্যতিক্রমী উদ্যোগ: দৃষ্টিনন্দন বিল পরিস্কার করলেন নিজেই যুদ্ধকালীন সাংবাদিকতার প্রশিক্ষণ পেলেন রবিউল হাসান ম্যানেজমেন্ট অ্যপ্রোচ ও ভিশন: মালিক-এর চাওয়া ও কর্মী’র প্রতিক্রিয়া দেখে এলাম এশিয়ার সর্ববৃহৎ ক্যাকটাস নার্সারি ওয়াইএসএসই-এর “রেজোন্যান্স-২.১ অনুষ্ঠিত নোবিপ্রবিতে ভর্তি আবেদন ১৬ই অক্টোবর পর্যন্ত বৃদ্ধি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তিযুদ্ধ    তরুণ প্রজন্মই পারে সবুজ পৃথিবী গড়তে উচ্চশিক্ষা ভাবনা, ক্যারিয়ার প্রতিবন্ধকতা ও উত্তরণ ১৭ সেপ্টেম্বর দক্ষিন কোরিয়ায়  শান্তি সামিট শুরু অনলাইনে হয়রানির শিকার হলে যা করবেন

বিশ্ব শান্তির প্রসারে দক্ষিণ কোরিয়ার শান্তি সামিট অনুষ্ঠিত

ইয়ুথ জার্নাল প্রতিবেদক

বিশ্বের বিভিন্ন দেশের রাজনৈতিক ও ধর্মীয় নেতৃবৃন্দ, নারী এবং যুব সংগঠনের মতো বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, পেশা ও গণমাধ্যম কর্মীদের উপস্থিতিতে দক্ষিণ কোরিয়ায় অনুষ্ঠিত হয়েছে এইচডব্লিউপিএল-২০১৮ ওয়াল্ড পিস সামিট।

হ্যাভেনলি কালচার, ওয়ার্ল্ড পিস ও রেস্টোরেশন অব লাইট (এইচডব্লিউপিএল)-এর আয়োজনে ১৭ থেকে ১৯ সেপ্টম্বর দক্ষিণ রোরিয়ায় এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

বিশ্বের ২০টি ভিন্ন সম্প্রদায়ের ধর্মীয় নেতারা সেখানে মিলিত হয়েছিলেন তাদের ধর্মীয় শান্তির সংস্কৃতির প্রসারে। এ ছাড়া ধর্মীয় শান্তির সংস্কৃতির প্রসারে সংহতি ও শান্তি কমিটির সদস্যরাও সেখানে নিয়োজিত ছিল।

পূর্ব তিমুরের দিলি লাফেকের রোটারি ক্লাবের কোঅর্ডিনেটর হারকুলানো এমারাল পিস ক্যাম্পেইনের পরবর্তী সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেন। তিনি জানান, গত বছর পূর্ব তিমুরের ইন্টারন্যাশনাল পিস ইযুথ গ্রুপ (আইপিওয়াইজি) সাবেক প্রেসিডেন্টের সঙ্গে দেখা করে এইচডব্লিউপিএল ও আইপিওয়াইজির কর্মকাণ্ড সম্পর্কে আলোচনা করেন। এই কর্মসূচির মাধ্যমে আমরা আমাদের প্রেসিডেন্ট ও আইন প্রনেতাদের সহযোগিতা পাওয়া চেষ্টা করছি।

কোরীয় উপদ্বীপের মধ্যে শান্তি প্রতিষ্ঠায় সহযোগিতার উদ্দেশ্যে এবারের সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

বিশ্বের ৩০ দেশের সাংবাদিক ও গণমাধ্যম কর্মীদের উপস্থিতিতে সেখানে পিস মিডিয়া প্লাটফর্ম পিস ইনশিয়েটিভ (পিআই)-এর উদ্বোধন করা হয়। মতপ্রকাশের স্বাধীনতার পক্ষে কথা বলা ও সংবাদের মাধ্যমে শান্তি প্রতিষ্ঠা করবে পিআই।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিউনিশিয়ার সাবেক রাষ্ট্রপতি এইচ ই ড. মনসেফ মারজোকি শান্তি প্রতিষ্ঠায় মিডিয়ার ভূমিকার ওপর গুরুত্ব আরোপ করেন। তিনি বলেন, একজন মানবাধিকার কর্মী হিসেবে আমি স্বাধীন সাংবাদিকতার কাছে ভীষণভাবে ঋণী। আরব বসন্তের সময় স্বাধীন সাংবাদিকতা সে দেশের স্বৈর শাসকের মুখোশ উন্মোচন করেছে তাদের কর্মকাণ্ড তুলে ধরে।

গণমাধ্যমমের স্বাধীনতা ও সহযোগিতা এবং বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় গণমাধ্যমের স্বাধীনতা বিষেয়ে যৌথ বিবৃতিতে স্বাক্ষরের মাধ্যমে তিন এই সম্মেলনের সমাপ্তি ঘটে।