মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯ | ৭ কার্তিক ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

First Youth News Portal in Bangladesh

add 468*60

শিরোনাম

ভিন্ন রঙে আঁকা পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস  সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের গুরুত্ব ও এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া আত্মহত্যা সমাধান নয় যেভাবে প্রাণের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে দেখতে চাই অত:পর, কোন একদিন...... দ্রুত ওজন কমানোর কিছু কৌশল জাপানের সুমিতমো বৃত্তি পেল ঢাবির ৪০ শিক্ষার্থী চীন যাচ্ছে ইনস্টিটিউট অব মেরিন টেকনোলজি (আইএমটি) বাগেরহাটের ১০ শিক্ষার্থী ইন্টারনেট ও তরুণ প্রজন্ম জাপান সরকার দিচ্ছে মেক্সট স্কলারশিপ উচ্চ মাধ্যমিকের পর ক্যারিয়ার পরিকল্পনা মাসের খরচের টাকা বাঁচিয়ে ব্যতিক্রম লাইব্রেরি চালান রাজশাহীর বদর উদ্দিন ঢাকায় প্রথম পিআর অ্যান্ড ব্র্যান্ড কমস সামিট ২৬ অক্টোবর রাজনীতি-ক্ষমতা ও তারুণ্য গণতন্ত্র, সমাজতন্ত্র ও তারুণ্য

বাংলাদেশের প্রথম আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর হচ্ছে চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (চুয়েট)

ইয়ুথ জার্নাল ডেস্ক

বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে দেশের প্রথম আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর নির্মাণ করা হচ্ছে চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (চুয়েট)। জুলাইয়ের প্রথম দিকে চুয়েটের ৫ একর জমিতে এ আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর নির্মাণের কাজ শুরু হবে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

প্রকল্প সূত্রে জানা গেছে, তথ্যপ্রযুক্তি খাতে দেশীয় সক্ষমতা যুগোপযোগী করতে এবং এ খাতে দক্ষ জনবল গড়ে তুলতে চুয়েটে আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর নির্মাণের প্রকল্প হাতে নেয় সরকার। ২০১৭ সালের ৬ জুন একনেকের সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ প্রকল্পের অনুমোদন দেন।

বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের তত্ত্বাবধানে ২০১৮ সালের জুলাই থেকে ২০১৯ সালের জুনের মধ্যে প্রকল্পটি বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সেই সময় এ প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয় ৭৬ কোটি ৯১ লাখ টাকা।

তবে প্রকল্প বাস্তবায়নের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কয়েকজন কর্মকর্তার বদলি, পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগে জটিলতাসহ নানা কারণে আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর নির্মাণের কাজ নির্ধারিত সময়ে শুরু করা যায়নি। সম্প্রতি এসব জটিলতা কাটিয়ে জুলাইয়ের প্রথমদিকে নির্মাণ কাজ শুরুর কথা জানিয়েছেন প্রকল্পের নির্বাহী প্রকৌশলী অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ মশিউল হক।

তিনি  জানান, কয়েক বছর আগে চুয়েটে আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হলেও নানা জটিলতায় তা আটকে ছিল। সম্প্রতি তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের ঐকান্তিক চেষ্টায় আমরা এসব জটিলতা কাটিয়ে উঠেছি। আশা করছি জুলাইয়ের প্রথম দিকে দেশের প্রথম এ আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর নির্মাণের কাজ শুরু করা সম্ভব হবে।

এক প্রশ্নের উত্তরে অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ মশিউল হক বলেন, প্রকল্প হাতে নেওয়ার কয়েক বছর পর নির্মাণ কাজ শুরু হচ্ছে- এ কারণে নির্মাণ ব্যয় হয়তো কিছুটা বাড়বে। সংশ্লিষ্ট দফতরে সংশোধিত নির্মাণ ব্যয় অনুমোদনের জন্য পাঠানো হয়েছে। তাই জুলাইয়ে কাজ শুরু করতে কোনো সমস্যা হবে না।

যা থাকছে আইটি বিজনেস ইনকিউবেটরে

প্রকল্পের আওতায় ৫ একর জমির উপর ১০ তলা ভবনের ৭ তলা পর্যন্ত ইনকিউবেশন ভবন তৈরি হবে। ৭ তলা ভবনটির প্রতি ফ্লোরে ৫ হাজার বর্গফুট করে মোট ৩৫ হাজার বর্গফুট স্পেস থাকবে।

ইনকিউবেশন ভবন ছাড়াও ৬ তলা ভিত্তিসহ ৪ তলা পর্যন্ত ২টি ডরমেটরি (১টি পুরুষ, ১টি নারী) ভবন তৈরি হবে। যার প্রতি ফ্লোরে ৫ হাজার করে দুটি ভবনে মোট ৪০ হাজার বর্গফুট স্পেস থাকবে।

এ ছাড়া ৮ তলা ভিত্তির ৬ তলা পর্যন্ত ১টি মাল্টিপারপাস প্রশিক্ষণ ভবন তৈরি করা হবে। যার প্রতি ফ্লোরে ৬ হাজার বর্গফুট করে মোট ৩৬ হাজার বর্গফুট জায়গা থাকবে।

প্রযুক্তিখাতে বিপ্লব ঘটাবে আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর চুয়েটের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম বাংলানিউজকে জানান, আমাদের দেশের তরুণরা চাকরির পেছনে ছুটছে শুধু। নানা সীমাবদ্ধতার কারণে উদ্যোক্তা হওয়ার সাহস দেখাতে পারছে না। আইটি বিজনেস ইনকিউবেটরের মাধ্যমে আমরা শিক্ষার্থীদের প্রযুক্তিখাতে উদ্যোক্তা হতে সহায়তা করবো।

তিনি বলেন, চুয়েটের আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর সৃষ্টিশীল তরুণদের জন্য অপার সম্ভাবনার দ্বার খুলে দেবে। এখানে যে কেউ যেকোনো ধরনের সৃজনশীল আইডিয়া নিয়ে আসতে পারবে। এ আইডিয়াকে কাজে লাগিয়ে একটি প্রোডাক্টিভ পণ্য তৈরি করে বাজারজাত করার দায়িত্ব ইনকিউবেটর সংশ্লিষ্টদের।

অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম বলেন, আমাদের শিক্ষার্থীরা মেধাবী, পরিশ্রমী। আইটি বিজনেস ইনকিউবেটরের মাধ্যমে তাদের যথাযথ প্রশিক্ষণ এবং নতুন নতুন ইনোভেশনে সহায়তা দিলে দেশের প্রযুক্তিখাতে বিপ্লব ঘটবে। তথ্যপ্রযুক্তি খাতে দেশীয় সক্ষমতা বহুগুণ বাড়বে।

সূত্র: বাংলা নিউজ ২৪